Home Page

Id No...606

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :DHAKA

পরিচালক সমিতির ভোট ২৫ জানুয়ারি



একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কারণে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির ভোট। প্রথা অনুযায়ী, ২৮ ডিসেম্বর (বছরের শেষ শুক্রবার) সংগঠনটির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও তা হবে আগামী বছরের ২৫ জানুয়ারি। বুধবার (১৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বাংলানিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, নির্দিষ্ট তারিখে ভোট হওয়ার সূচি রেখেই আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিলাম। কিন্তু মঙ্গলবার (১৩ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত সমিতির পর্ষদ সভায় ভোটের তারিখ পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে। ‘এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। সব ঠিক থাকলে ২০১৯ সালের ২৫ জানুয়ারি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।’ গুলজার বলেন, পরিচালক সমিতির নির্বাচন সাধারণত বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরের শেষ শুক্রবার হয়ে থাকে। তবে জাতীয় নির্বাচনের কারণে এবার নতুন তারিখ দেওয়া হয়েছে। এদিকে এবার সমিতির ভোটে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন আব্দুল লতিফ বাচ্চু। তার সঙ্গে কমিশনার হিসেবে থাকবেন শফিকুর রহমান ও বিএইচ নিশান। এছাড়া আপিল বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন কিংবদন্তি অভিনেতা সৈয়দ হাসান ইমাম। এ বোর্ডের সদস্য রয়েছেন আবু মুসা দেবু ও আজিজুর রহমান। সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, এবার সমিতির মোট ভোটার ৩৬৫ জন। ভোটের আগে অর্থাৎ ৩ জানুয়ারি খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে। আর ১৪ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আগে ২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচন হয়। তখন মুশফিকুর রহমান গুলজার সভাপতি ও বদিউল আলম খোকন মহাসচিব নির্বাচিত হন।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...605

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

কমিক দুনিয়ায় চমকে দেওয়া হিরো স্ট্যান লি!



অনেক নায়ক সৃষ্টি করেছেন স্ট্যান লি। সেই নায়কদের নানা কীর্তিকলাপ এক সময় শুধুই ছাপাখানা থেকে বের হতো। ধীরে ধীরে রূপালি পর্দায় রাজত্ব বিস্তার করেছে স্ট্যান লি’র তৈরি সুপার হিরোরা। ছবি: রয়টার্সঅনেক নায়ক সৃষ্টি করেছেন স্ট্যান লি। সেই নায়কদের নানা কীর্তিকলাপ এক সময় শুধুই ছাপাখানা থেকে বের হতো। ধীরে ধীরে রূপালি পর্দায় রাজত্ব বিস্তার করেছে স্ট্যান লি’র তৈরি সুপার হিরোরা। ছবি: রয়টার্সনাহ্, তিনি ব্রুস লির আত্মীয় নন। হংকংয়ের কিংবদন্তী এই মারকুটের মতো মার্শাল আর্টেও দক্ষ ছিলেন না। ছিলেন না কোনো সিনেমার নায়কের চরিত্রে। কিন্তু অনেক নায়ক সৃষ্টি করেছেন। সেই নায়কদের নানা কীর্তিকলাপ এক সময় শুধুই ছাপাখানা থেকে বের হতো। ধীরে ধীরে রূপালি পর্দায় রাজত্ব বিস্তার করেছে স্ট্যান লি’র তৈরি সুপারহিরোরা। কমিকস আর হলিউড মিলিয়ে বিশ্বব্যাপী শত শত কোটি ডলারের ব্যবসা করছে তারা।

স্ট্যান লি’র পুরো নাম স্ট্যানলি মার্টিন লাইবার। ব্রুস লি’র সঙ্গে এই লি’র একটি জায়গায় মিল আছে। দুজনই কর্মক্ষেত্রে নিজেদের নামে কিছুটা অদল-বদল করেছিলেন। বাবা-মায়ের দেওয়া নাম বদলের পর মার্শাল আর্টের গুরু ও বিখ্যাত মুভি স্টার হিসেবে ‘ব্রুস লি’ নামটিই পরিচিতি পায়। ব্রুসের পরিবার প্রদত্ত নামটি বেশ বড়সড় ও কিছুটা কাঠখোট্টা। ঠিক সেভাবেই স্ট্যানলি হয়ে যায় স্ট্যান লি। পরিবর্তিত নামে এতটাই জনপ্রিয়তা পেয়ে যান মার্ভেল কমিকসের এই কর্তা যে, শেষমেষ আইনিভাবে সিদ্ধ করতে হয়েছিল নতুন নামটি। বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, ১৯২২ সালে আমেরিকায় স্ট্যান লি’র জন্ম। দরিদ্র ইহুদি পরিবারে জন্ম নিয়ে শৈশব থেকেই সংগ্রামের মুখোমুখি হতে হয়েছিল তাঁকে। বিরূপ পরিস্থিতিতে লড়ে যাওয়ার সেই প্রত্যয় থেকেই হয়তো লড়াকু সুপারহিরোদের চরিত্র সৃষ্টিতে উৎসাহী হয়েছিলেন তিনি। মাত্র ১৭ বছর বয়সে কমিকস লেখা শুরু করেছিলেন স্ট্যান লি। সেটি ১৯৪১ সালের ঘটনা। বাকিটা ইতিহাস। কাজ শুরুর এক বছরের মাথায় সংশ্লিষ্ট বিভাগের সম্পাদক হয়েছিলেন স্ট্যান লি! শুরুতে যে টাইমলি পাবলিকেশন্সে কাজ জোটাতে গলদঘর্ম হয়েছিল, সেই প্রতিষ্ঠানকে মার্ভেল কমিকসে পরিণত করেন স্ট্যান—যা কিনা কমিক বিশ্বের ধারণাটাই পাল্টে দিয়েছে।

স্ট্যান লি’র সৃষ্ট চরিত্র কত? কমিকবুকের হিসাব অনুযায়ী, সংখ্যাটি শতাধিক। ফ্যান্টাস্টিক ফোর, স্পাইডারম্যান, অ্যাভেঞ্জারস, এক্স ম্যান, ব্ল্যাক প্যান্থার, আয়রন ম্যান, ডেয়ারডেভিল, হাল্ক, থর—স্ট্যান লি’র তৈরি সুপারহিরোর তালিকা বেশ লম্বা। শুধু হিরো নয়, আলোচিত অনেক ভিলেন চরিত্রও তৈরি করেছেন তিনি। এক কথায়, গত শতাব্দীর ষাট, সত্তর ও আশির দশকের কমিক জগতের বেশির ভাগ চরিত্রকেই ফুটিয়ে কালি ও কলমে ফুটিয়ে তুলেছেন এই ব্যক্তি। আর তাতে আলোকিত হয়েছে শিশুদের শৈশব। এক পর্যায়ে শৈশবের গণ্ডি ছাড়িয়ে তার রচিত কমিকস গেছে বহুদূর। মূলত শিশুদের জগৎ থেকে সব বয়সের মানুষের মধ্যে কমিকসকে জনপ্রিয় করে তোলার নেপথ্যের কারিগর লি। তবে কমিক লেখা শুরুর পর থেকেই যে লি’র জীবন প্রাপ্তিতে ভরে গেছে, তা কিন্তু নয়। হোঁচট খেতে হয়েছে অনেকবার। সবচেয়ে বড় সমস্যার মুখোমুখি হয়েছিলেন বয়স চল্লিশের কোঠায় আসার পর। ততদিনে ২০ বছর ধরে কমিক লেখার অভিজ্ঞতা হয়ে গেছে তাঁর। এতেই তাঁর মনে হচ্ছিল, কমিক লেখার জন্য বয়সটা বড্ড বেশি হয়ে গেছে! ঠিক সেই সময়ই পাশে পেয়েছিলেন স্ত্রী জোয়ানকে। সহধর্মিণী বলেছিলেন, কমিক লেখার ক্ষেত্রে লি যেন নিজের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দেন। তাতেই যেন সঠিক পথের দিশা খুঁজে পান লি। লিখে ফেললেন নতুন ধারার কমিকস ফ্যান্টাস্টিক ফোর। ১৯৬১ সালের এই ঘটনাই তৎকালীন বাজারের অপ্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান ডিসি কমিকসের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে মার্ভেলকে। বদলে যায় লি’র জীবন। বদলে যায় পুরো কমিক শিল্প।
সিএনএনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডিসি কমিকস সেই সময় বাজারে এনেছিল ব্যাটম্যান, সুপারম্যান ও ওয়ান্ডার ওম্যান—এই তিনটি চরিত্র। এগুলোর ব্যবসাও ছিল মার মার কাট কাট। টিকে থাকতে হলো এর জবাব দিতেই হতো তৎকালীন টাইমলি পাবলিকেশন্স তথা মার্ভেলকে। স্ট্যান লি ঠিক সেই কাজটিই করেছিলেন। আর তাতেই কেল্লা ফতে!

ব্রিটিশ সাময়িকী ইকোনমিস্ট বলছে, লি তাঁর ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন কমিকসের স্বর্ণালী যুগে। মার্ভেল যখন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তিনি, তখন কমিকসে ছিল কিছুটা ভাটার টান। কিন্তু নতুন নতুন সুপারহিরোদের আর্বিভাব ঘটিয়ে লি সৃষ্টি করেন ‘মার্ভেল এজ অব কমিকস’। এর তোড়ে এখন তো প্রায় ভেসেই গেছে ডিসি কমিকস! আয়ের দিক থেকে ব্যাটম্যান-সুপারম্যানদের ছাড়িয়ে গেছে অ্যাভেঞ্জারস-আয়রন ম্যানরা। শুধু সিনেমা বানিয়েই এ যাবত বিশ্বজুড়ে ১৭ বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা করেছে মার্ভেল। গার্ডিয়ান বলছে, লি’র নিজস্ব সম্পদের পরিমাণ পৌঁছে গেছে ৮০ মিলিয়ন ডলারে। ফোর্বস জানাচ্ছে, এর সঙ্গে ছাপা কমিকস, খেলনা, পোস্টার বিক্রি বাবদ সংখ্যা যুক্ত হওয়ার পর মোট ব্যবসার অঙ্কটি যে আকাশ ছোঁবে—তা বলার অপেক্ষা রাখে না।
বিশ্লেষকেরা বলছেন, স্ট্যান লি কখনোই কমিকসের মানের সঙ্গে আপোষ করতেন না। বেশির ভাগ কমিক চরিত্র সৃষ্টির ক্ষেত্রেই অন্য আরও শিল্পীর সঙ্গে কাজ করেছেন তিনি। উল্লেখযোগ্য হলেন জ্যাক কারবি, স্টিভ ডিটকো, জন রোমিটা প্রমুখ। তাঁরা সবাই মিলেই প্রতিষ্ঠা করেছেন মার্ভেল কমিকসের একাধিপত্য। কিন্তু স্ট্যান লি এঁদের সবার চেয়ে একটু আলাদা। তিনি শুধু যে কমিকসের বাজার সম্প্রসারণ করেছেন তাই নয়, একইসঙ্গে তৈরি করেছেন কমিকস অনুরাগীদের একটি বিশেষ সম্প্রদায়। পাঠকদের পাওয়া অজস ৶ চিঠির জবাব দেওয়ার চেষ্টা করতেন তিনি। ছিলেন বন্ধুবৎসল। ওই সময় সচরাচর কমিক স্রষ্টাদের দেখা পেতেন না পাঠকেরা। কিন্তু স্ট্যান লি ছিলেন ব্যতিক্রম। পাঠকদের কাছে নিজেকে পৌঁছে দিয়েছিলেন তিনি! প্রশ্ন আসতেই পারে, কেন এত জনপ্রিয়তা পেয়েছিল স্ট্যান লি’র সৃষ্টি? আদতে তিনিই প্রথম এমন সুপারহিরো তৈরি করেছিলেন, যাদের জীবন সাধারণ মানুষের মতো সমস্যায় জর্জরিত। সিএনএন বলছে, স্ট্যান লি’র সুপারহিরোরা সবাই এক সময় সাধারণ ছিলেন, পরে অসাধারণ ক্ষমতার অধিকারী হয়ে অসাধারণ হয়েছেন। এই সুপারহিরোরা শুধু পেশিশক্তির অধিকারী নয়, এদের ঘটে বুদ্ধিও আছে। স্ট্যানের এক্স ম্যান ও ব্ল্যাক প্যান্থার সিরিজে উঠে এসেছিল বৈষম্য ও তার বিরুদ্ধে লড়ার গল্প। আয়রন ম্যানে আবার দেখা যায় পুঁজিবাদ ও অস্ত্র ব্যবসার সখ্যতা। ক্যাপ্টেন আমেরিকা আবার দেশাত্মবোধকে প্রাধান্য দিয়েছে। এবার আপনিই বলুন, স্ট্যান লি’র সুপারহিরোদের আশপাশের বাস্তব ঘটনার সঙ্গে মেলাতে কারও কি অসুবিধে হওয়ার কথা?

পুরো কমিক শিল্পকে আমূল বদলে দেওয়া এই স্ট্যান লি গত সোমবার মারা গেছেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর। কিন্তু বয়সের এই হিসাব, মার্ভেল অধিকর্তার প্রয়োজন ফুরিয়ে যাওয়ার পূর্বাভাস দেয় না। উল্টো আরও কিছুদিন তাঁর ছায়ায় থাকার আকাঙ্ক্ষা ব্যক্ত করে। ৭০ বছর ধরে স্ট্যানের জীবনসঙ্গী ছিলেন জোয়ান। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা গেছে, গত গ্রীষ্মে স্ত্রীর মৃত্যুর পর থেকেই শারীরিকভাবে বেশ ভেঙে পড়েছিলেন সুপারহিরোদের জনক। আর গত কয়েকবছর ধরেই চোখে প্রায় কিছুই দেখতেন না তিনি। ২০১৬ সালে রেডিও টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে লি জানিয়েছিলেন নিজের আক্ষেপের কথা। বলেছিলেন, বই পড়াটা বড্ড মিস করছেন তিনি!

শেষ করছি স্ট্যান লি’র একটি কথা দিয়ে। আচ্ছা, সবচেয়ে বড় ক্ষমতা বা সুপারপাওয়ার কি? স্ট্যানের মতে, ভাগ্য। তাঁর জবানিতে, ‘কারণ, যদি আপনার সঙ্গে সৌভাগ্য থাকে, তখন সব আপনার মন মতোই হবে।’

অবশ্য বাবাকে হারিয়ে সন্তানদের (সুপারহিরো) যে দুর্ভাগ্য বরণ করে নিতে হয়েছে, তা নিশ্চিত। আয়রন ম্যানেরা এবার বক্স অফিসে কোনো তালগোল না পাকালেই হয়! তখন কিন্তু ‘মার্ভেলাস’ স্ট্যান লি’কে বড্ড মনে পড়বে।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...604

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

রাখিকে তুলে আছাড় মারল কে?



রাখি সাওয়ান্ত আইটেম গার্ল হিসেবে পরিচিত। তবে শুধু ক্যামেরার সামনেই নয়, নানা ধরনের মঞ্চে নাচ করেন তিনি। সম্প্রতি ঝুঁকিপূর্ণ এক মঞ্চে নাচ করতে গিয়ে ভয়াবহ এক অভিজ্ঞতার শিকার হয়েছেন এই বলিউড আইটেম গার্ল। তাঁকে তুলে আছাড় মেরেছেন একজন নারী রেসলার। আহত রাখিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত রোববার ভারতের পঞ্চকুলা শহরের তাউ দেবীলাল স্টেডিয়ামে এক রেসলিং রিংয়ে নাচ করতে গিয়েছিলেন রাখি সাওয়ান্ত। নাচ করার ফাঁকে এক নারী রেসলার এগিয়ে এসে তাঁকে মারপিটের আমন্ত্রণ জানান। রাখি বলেন, ‘আমি একজন নৃত্যশিল্পী, পারলে নাচে আমাকে হারাও।’ এরপর দুজনেই নাচ শুরু করেন। অল্প সময়ের মধ্যে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি শুরু হয়ে যায়। একসময় নারী রেসলার রাখিকে দুহাতে ওপরে তুলে মেঝেতে আছাড় দেন। তারপর রাখিকে দুই পায়ের ফাঁকে রেখে নাচতে শুরু করেন ওই রেসলার। ওই সময় রাখি নিস্তব্ধ হয়ে পড়ে ছিলেন। মারাত্মক আহত রাখি সাওয়ান্তকে জিরাকপুর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সূত্র জানিয়েছে, রাখির অবস্থা স্থিতিশীল। তবে তিনি মেরুদণ্ডে খুব ব্যথা পেয়েছেন। জানিয়েছেন, পাকস্থলীতেও ব্যথা রয়েছে তাঁর। এ বিষয়ে মুখ খুলছেন না ওই রেসলিংয়ের আয়োজকেরা। এর আগে বলিউড তারকা তনুশ্রী দত্তকে মিথ্যাবাদী বলে খবরের শিরোনাম হন রাখি সাওয়ান্ত। ২০০৮ সালে বলিউড অভিনেতা নানা পাটেকরের কাছে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছিলেন তনুশ্রী। সম্প্রতি সেই ঘটনা প্রকাশের মাধ্যমে ভারতে #মি টু আন্দোলনের সূচনা করেন তিনি। সে প্রসঙ্গে রাখি বলেছিলেন, নানা পাটেকরের ব্যাপারে তনুশ্রী দত্ত মিথ্যা বলেছেন। ঘটনা সত্য হলে তা এত দিন পর কেন প্রকাশ করলেন তিনি। জবাবে রাখির বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন তনুশ্রী দত্ত। ট্রিবিউন ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...601

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

স্পাইডারম্যান-আয়রনম্যান স্রষ্টা স্ট্যান লি আর নেই



য়রনম্যান, স্পাইডারম্যান ও ব্ল্যাক প্যানথারসহ কালজয়ী সব কমিক্সের স্রষ্টা স্ট্যান লি মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছির ৯৫ বছর। স্ট্যান লি’র পারিবারিক আইনজীবী বিবিসিকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ওই আইনজীবী বলেন, স্থানীয় সময় সোমবার সকালে লস অঞ্জেলসের সিডার্স সিনাই মেডিকেল সেন্টারে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন লি। স্ট্যান লি দীর্ঘদিন ধরে নিউমোনিয়াসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। পৃথিবী বিখ্যাত স্পাইডারম্যান, এক্স ম্যান, হাল্ক, আয়রনম্যান, ব্ল্যাকপ্যানথারসহ ও ডক্টর স্ট্রেঞ্জের মতো সব চরিত্রের অন্যতম স্রষ্টা এই মার্কিন কমিক্স লেখক। মার্ভেল কমিক্সের সাবেক প্রেসিডেন্টও ছিলেন লি।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...595

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

সালমানকে পেছনে ফেলে আমিরের রেকর্ড



মুক্তির প্রথম দিনে বক্স অফিসে রেকর্ড পরিমাণ আয় করেছে বিগ বাজেটের সিনেমা ‘থাগস অব হিন্দুস্থান’। প্রথম দিনেই সিনেমাটি গড়েছে অনন্য রেকর্ড। প্রথমদিনে বক্স অফিসে সিনেমাটি মোট আয় ৫২ কোটি ২৫ লাখ রুপি। বলিউডের ইতিহাসে মুক্তির প্রথম দিনে এটিই সর্বোচ্চ আয়। এরফলে ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সালমান খানের ‘প্রেম রতন ধন পাও’ সিনেমার রেকর্ড ভেঙ্গে দিলো আমির খান অভিনীত সিনেমাটি। সালমানের সিনেমাটি প্রথমদিনের আয় ছিলো ৩৯ কোটি ৩২ লাখ রুপি। এছাড়াও ‘বাহুবলী টু’র (হিন্দি) ৪০ কোটি ৭৩ লাখ রুপি আয়ের রেকর্ড টপকে গেছে ‘থাগস অব হিন্দুস্থান’। যদিও মুক্তি পর সিনেমাটি বিশ্লেষকদের সমালোচনার মুখে পড়েছে। তবে সিনেমাটির সাফল্য অনেকাংশে নির্ভর করছে দ্বিতীয় দিনের আয়ের উপর। কারণ প্রথম দিনের আয়ের বেশিরভাগ অর্থই এসেছিল অগ্রিম টিকেট বুকিং থেকে। ‘থাগস অব হিন্দুস্থান’ হিন্দি ভার্সন থেকে আয় করেছে ৫০ কোটি ৭৫ লাখ রুপি ও তামিল ও তেলেগু ভার্সনে মোট আয় ১ কোটি ৫০ লাখ রুপি। বিজয় কৃষ্ণা পরিচালিত বছরের অন্যতম আলোচিত সিনেমাটি দীপাবলি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) মুক্তি পায়। বিগ বাজেটের মেগা অ্যাকশন সিনেমা ‘থাগস অব হিন্দুস্থান’ প্রযোজনা করেছে যশরাজ ফিল্মস। এই সিনেমার মধ্য দিয়ে প্রথমবার বড় পর্দায় একসঙ্গে দেখা গেলো বলিউড ‘শাহেনশাহ’ অমিতাভ বচ্চন ও মি. পারফেক্টশনিস্ট আমির খানকে। আরও অভিনয় করেছেন ক্যাটরিনা কাইফ ও ফাতিমা সানা শেখ।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...593

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :DHAKA

১৬ নভেম্বর প্রেক্ষাগৃহে আসছে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’





একজনের প্রতিশোধ দেশের প্রতিবাদ। এই স্লোগানকে সামনে রেখে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ ছবির ট্রেলার প্রকাশ হয়েছে ৫ নভেম্বর সন্ধ্যায়। ৩ মিনিট ১১ সেকেন্ডের ট্রেলারটিতে উঠে এসেছে বাংলাদেশের কালো এক অধ্যায়ের গল্প! অবশ্যই সিনেমাটিক ভঙ্গিতে। ট্রেলারটির শুরু আল-কোরানের বাণী দিয়ে! সুরা আল মায়িদাহ থেকে উদ্ধৃতি করা হয়েছে ‘যে একজন নিরপরাধ ব্যক্তিকে হত্যা করলো সে যেন সমস্ত মানব জাতিকে হত্যা করলো এবং যে একজন নিরপরাধ ব্যক্তির জীবন রক্ষা করলো সে যেন সমগ্র মানব জাতীকেই রক্ষা করলো।’ নির্মাতার ভাষ্য, আল-কোরানের এই আয়াতটুকুর মধ্যেই লুকিয়ে আছে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ সিনেমার মূল ভাব। সিনেমার মূল বিষয় জঙ্গীবাদ। জঙ্গীবাদের আস্ফালনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ আজ ঢুঁকরে মরছে। বিপন্ন হচ্ছে বিশ্ব মানবতা। ধর্মের নামে উগ্রবাদীতার ফলে বহু দেশ আজ নাজুক। জঙ্গীবাদের এমন ভয়ঙ্কর চর্চা স্পর্শ করে গেছে বাংলাদেশকেও। দেশের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে একযোগে বোমা বিস্ফোরণ, রমনা বটমূলে বোমা হামলা, বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আঘাতসহ সর্বশেষ রাজধানীর হলি আর্টিজানে ভয়ঙ্কর হামলার ঘটনা বাঙালির হৃদয়ে ক্ষতচিহ্ন এঁকে দিয়ে গেছে। আর এসব ক্ষতাক্ত ঘটনায় যেন উঠে এসেছে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ ছবিতে। টুকরো টুকরো ‍দৃশ্যে এমনটাই দেখা গেছে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ ছবির ট্রেলারে। যেখানে দেখা যায় একজন বলছেন, ‘এই দেশে শরিয়াহ আইন প্রতিষ্ঠা করাই হবে আমাদের জিহাদি রাষ্ট্র কায়েমের উদ্দেশ্য।’ ধর্মের কথা বলে অসংখ্য সরল যুবাদের জড়ো করা হয়। তরুণদের উদ্বুদ্ধ করা হয় জান্নাতের প্রলোভন দেখিয়ে। ‘ওই দেখ জান্নাত’! মস্তিস্ক এমন ভাবে ধুলাই করা হয় যেন মুহূর্তেই নিজের জীবন বিলিয়ে দেয়ার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়তে পারেন নওজুয়ানরা। মিশনে যাওয়ার সময় তাই একজন আরেকজনের কাছ থেকে বিদায় নেন এই বলে যে, জান্নাতে দেখা হবে! কাদের জীবন দেখানো হয়েছে সিনেমায়? কারা জঙ্গীবাদীর পথ বেছে নেন? কিসের উদ্দেশ্যে ধর্মের নামে অরাজকতা তৈরি করেন তারা? আর কাদেরকে উদ্দেশ্য করেই বা সুরা মায়িদাহ’র উদাহরণ টানা হয়েছে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ ছবিতে? ইসলাম কি ধর্মের নামে মানব হত্যাকে সমর্থন করে? ইসলাম কি জঙ্গীবাদের শিক্ষা দেয়?-আর এসব অসংখ্য প্রশ্নেরই উত্তর পাওয়া যাবে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ সিনেমায়। এমনটাই বলছিলেন ছবির প্রযোজক ও অভিনেতা খিজির হায়াত খান। আর তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আগামী ১৬ নভেম্বর পর্যন্ত। কারণ এদিন মহাসমারোহে দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে চলেছে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’। দেশের পতাকা বুকে ধারণ করে জঙ্গিবাদ নিমূর্লে নেমেছেন ‘মিস্টার বাংলাদেশ’। প্রেম ভালোবাসা পরিবারের গল্প, নাচ গান, মারামারি সবই ভেসে উঠেছে এই ট্রেলারে। ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ পরিচালনা করছেন আবু আকতারুল ইমান। ছবির কাহিনী ও চিত্রনাট্য করেছেন নির্মাতা খিজির হায়াত খান ও হাসনাত পিয়াস। ছবির বিভিন্ন চরিত্রে আরো অভিনয় করেছেন লাক্স তারকা শানু, টাইগার রবি, মেরিয়ান, শামীম আহসান সরকার প্রমুখ।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...586

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :DHAKA

নাটক ধ্বংসে চ্যানেলগুলোকে দায়ী করলেন শিল্পীরা



দেশের টিভি নাটকের মানের অবনতির জন্য টেলিভিশন চ্যানেলগুলো দায়ী। মান নিয়ন্ত্রণ না করেই নাটকগুলো চালাচ্ছে তারা। এ অভিযোগ করলেন অভিনয়শিল্পীরা। তাঁরা বলছেন, চ্যানেলগুলো কম পয়সায় পচা আলু কিনে খাওয়াচ্ছে দর্শকদের। আজ শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির চিত্রশালা মিলনায়তনে এক সেমিনারে মুক্ত আলোচনায় বক্তারা এসব কথা বলেন। সেমিনারে ‘পেশাদারিত্বের সংকটে দেশের টেলিভিশন নাটক ও অভিনয়শিল্প’ শীর্ষক প্রবন্ধ পড়েন অভিনয় শিল্পী সংঘের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রওনক হাসান। এ নিয়ে মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন অভিনয়শিল্পীরা। শিল্পীরা বলেন, নাটকের মান খারাপ হওয়ার পেছনে অন্যতম কারণ শিল্পী ও নির্মাতাদের অপেশাদারি মনোভাব। দেশে নির্মিত ৮০ শতাংশ নাটক গ্রহণযোগ্যতা হারাচ্ছে। এর ফলে দেশের দর্শক বেশির ভাগ সময় কাটাচ্ছেন ভারতীয় বাংলা চ্যানেলগুলোতে। দেশি টিভিগুলো পরিচালকদের কম বাজেটে নাটক বানাতে বাধ্য করছে। বাজেট কম থাকায় সেসব নাটকে শিল্পী থাকছেন কম। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অপেশাদার কলাকুশলী দিয়ে করিয়ে নেওয়ার কারণে কাজ খারাপ হচ্ছে। এমনকি যথেষ্ট বাজেট না থাকায় ভালো চিত্রনাট্য দিয়েও নাটক করা সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় অনেকে এ পেশা থেকে সরে যাচ্ছেন। প্রবন্ধে টিভি নাটকের আজকের এই অবস্থার কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে টেলিভিশন ও টেলিভিশন নাটককে শিল্প ঘোষণা না করা, সুনির্দিষ্ট নীতিমালার অভাব, নাটকের মান নিয়ন্ত্রণে চ্যানেলের ব্যর্থতা কিংবা উদাসীনতা, মধ্যস্বত্বভোগীদের হস্তক্ষেপ, নাটকের মূল্য কমে যাওয়া, নাটকে চরিত্রাভিনেতাদের হারিয়ে যাওয়াকে। এ ছাড়া ত্রিপক্ষীয় চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়া, নির্মাণে নিম্নমুখী প্রতিযোগিতা ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের প্রভাবকেও একইভাবে দায়ী করা হয়েছে। মুক্ত আলোচনায় অভিনেতা আজাদ আবুল কালাম বলেন, ‘এতগুলো টেলিভিশন চ্যানেলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে, অথচ এগুলোতে কী চলবে আর কী চলবে না, সে বিষয়ে কোনো নীতিমালা নেই। এর দায় কর্তৃপক্ষের। সবাইকে কেন টেলিভিশন চ্যানেল খোলার অনুমতি দিতে হবে? অন্যদিকে আমরা অভিনয়শিল্পীরা নিজেকে দক্ষ করে তোলার বদলে একে অন্যকে দোষারোপ করছি আর ভিখিরির মনোভাব নিয়ে টিভি কর্তৃপক্ষের কাছে ধরনা দিচ্ছি। মন্দের ভালো খুঁজতে খুঁজতে আমরা মন্দের ভেতরে ডুবে গেছি।’ অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী বলেন, ‘চ্যানেল বা এজেন্সির লেজুড়বৃত্তি না করে নিজেদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত একজনও কাজ করব না, সে রকম মনোভাব থাকতে হবে। নিজেদের শিরদাঁড়া টানটান করে কাজ করতে হবে।’ মোশাররফ করিম বলেন, ‘অনেক কাজ করলেও আমি আসলে তৃপ্ত নই। অনেক টাকা রোজগার করি, কিন্তু সেটা একটা ভালো প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে করতে চাই। নাটকের পেছনে যারা কাজ করছে, তাদের যথাযথ সম্মানী দিতে হবে। আর এ জন্য নাটকের বাজেট বাড়াতে হবে।’ আফরোজা বানু বলেন, ‘যখনই শুটিংয়ে ডাকবে, তখনই হাজির হওয়া যাবে না। আমাদের কাজের একটি নির্দিষ্ট সময় থাকতে হবে। সাপ্তাহিক ছুটি থাকতে হবে। পরিবারকে সময় না দিলে পরিবার টেকানো সম্ভব নয়।’ নাট্যকার বৃন্দাবন দাস বলেন, ‘আমি শখের অভিনেতা। নাটক লেখাকে পেশা হিসেবে নিয়ে একটা গ্লানিকর অবস্থায় পৌঁছে গেছি। প্রায়ই মনে হয় পেশা বদলাই। সবাইকে ভাবতে হবে যে এ রকম অনুভূতি একদিন সবারই হবে। তাই আমাদের এখনই ঘুরে দাঁড়াতে হবে।’ অভিনয় ছেড়ে অনুষ্ঠান উপস্থাপনাকে পেশা হিসেবে নিয়েছেন শাহরিয়ার নাজিম জয়। তিনি বলেন, ‘অভিনয় করে যে টাকা আয় করতাম, তার থেকে এখন অনেক বেশি টাকা রোজগার করি। কিন্তু মন পড়ে থাকে অভিনয়ে।’ তিনি বলেন, অভিনয়শিল্পীদের আজকের এ অবস্থা বদলাতে টেলিভিশনের ওপর থেকে নির্ভরশীলতা কমাতে হবে। ভেবে দেখতে হবে অনলাইন প্ল্যাটফর্মের কথা। সেখানে অনেক বাজেট নিয়ে অপেক্ষা করছেন উদ্যোক্তারা। বিজ্ঞাপন-বাণিজ্য প্রসঙ্গে প্রবন্ধে বলা হয়েছে, পে চ্যানেল না হওয়ায় বিজ্ঞাপন থেকে পাওয়া টাকাই চ্যানেলের আয়ের মূল উত্স। একসময় মান ও জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে চ্যানেলের অনুষ্ঠানগুলোতে নির্দিষ্ট মাত্রায় বিজ্ঞাপন প্রচার করা হতো। এখন অধিকাংশ চ্যানেলে সম্পর্ক এবং যোগাযোগের ভিত্তিতে বিজ্ঞাপন বরাদ্দ হয়। কোনো অনুষ্ঠান জনপ্রিয় হলে সেই অনুষ্ঠানের মাঝখানে অসহনীয় মাত্রায় বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়। তখন দর্শক বিরক্ত হয়ে অন্য চ্যানেলে চলে যান। টিআরপি প্রসঙ্গে বক্তারা বলেন, সমাজের নিম্ন আয়ের মানুষের রুচির ওপর ভিত্তি করে টেলিভিশনের টিআরপি নির্ধারণ করা হচ্ছে। মাত্র এক থেকে দেড় হাজার টিভি সেটে বসানো বক্স থেকে পাওয়া তথ্যের ওপর ভিত্তি করে টিআরপি নির্ধারিত হচ্ছে। এক-দেড় হাজার মানুষের রুচির পরিসংখ্যান দিয়ে বিচার করা হচ্ছে ১৭ কোটি মানুষের রুচি। বিষয়টি ভয়াবহ ও হাস্যকর। কিন্তু টিভি চ্যানেলগুলো বিচিত্র কারণে এই পরিসংখ্যানের ওপরই গুরুত্ব দিচ্ছে। প্রবন্ধে টিভি নাটকের আজকের এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে নাটকের ন্যূনতম মূল্য নির্ধারণ, বাজেট বৃদ্ধি, শিল্পী নির্বাচনে পরিচালকদের স্বাধীনতা, পে চ্যানেল বাস্তবায়ন, বিদেশি অনুষ্ঠান আমদানি ও প্রচারের নীতিমালা সংস্কারসহ বেশ কিছু প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। সেমিনারে অভিনয়শিল্পীরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্ট চারটি সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকেরা। মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জ্যেষ্ঠ অভিনেতা আবুল হায়াত ও এনামুল হক, টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি মামুনুর রশীদ, নাট্যকার সংঘের সভাপতি মাসুম রেজা, সেক্রেটারি জেনারেল এজাজ মুন্না, ডিরেক্টরস গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক এস এ হক অলিক, অভিনয় শিল্পী সংঘের সভাপতি শহিদুল আলম সাচ্চু, সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব নাসিম প্রমুখ। আহসান হাবীব নাসিম জানান, সেমিনার থেকে পাওয়া প্রস্তাবগুলো নিয়ে ১৫ দিনের মধ্যে আবারও আলোচনায় বসবেন তাঁরা। উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে, সেসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...585

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

`জিরো`র পতাকা উড়বে চীনে



চীনে বলিউডি ছবির বাজার দিন দিন বাড়ছে। সেখানে বলিউডের অধিকাংশ ছবিই হিট তো হচ্ছেই সঙ্গে ২০০-৩০০ কোটির ব্যবসাও করছে। চীনের বক্স অফিসে এবার ঢুকতে চলেছে শাহরুখ খানের জিরো।

২০১৯ এর মার্চ নাগাদ চীনে মুক্তি পেতে চলেছে `জিরো`। খবরটি ফিল্ম দর্শকদের আদর্শ টুইট করে জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, শাহরুখ খান এখন তার বিগ বাজেট ফিল্ম `জিরো`র প্রমোশনে ব্যস্ত। আনন্দ এল রাইয়ের পরিচালিত ছবিটিতে শাহরুখ একজন বামনের ভূমিকায় অভিনয় করছেন।

জানা গেছে, ক্যাটরিনার লাভ ইন্টারেস্ট হিসেবে অভিনয় করবেন অভয় দেওল। অন্যদিকে অানুশকা শর্মাও রয়েছেন একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে। নাসার বৈজ্ঞানিকের ভূমিকায় অভিনয় করছেন বলে তাকে প্রচুর রিসার্চ করতে হয়েছে।

ছবিটিতে ‘যব তক হ্যায় জান’র মতো ত্রিকোণ প্রেমের গল্প দেখা যাবে নাকি অন্য কিছু থাকবে সেটাই এখন দেখার বিষয়। এই তিন তারকা ছাড়া ছবিতে গেস্ট অ্যাপিয়ারেন্সে রয়েছেন বহু বলি তারকা। সালমান খান থেকে শুরু করে কাজল, রানি মুখোপাধ্যায়, আলিয়া ভাট, কারিশমা কাপুর।

সালমান খান, শাহরুখ খান এবং ক্যাটরিনা কাইফের একটি আইটেম নম্বর থাকবে বলেও জানা গেছে। যেখানে অভিনেত্রীকে নিয়ে লড়াই করবেন দুই নায়ক। এরকম পাওয়ার প্যাকড পারফরমেন্সের জন্য অধীর আগ্রহে বসে আছে ভক্তকূল।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...581

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

‘Wonder Woman’ sequel pushed back to summer 2020



The world will have to wait a little longer for the "Wonder Woman" sequel, which will now arrive in theaters in summer 2020. Warner Bros. announced Monday that "Wonder Woman 1984" will now open on June 5, 2020. The film starring Gal Gadot as the Amazonian superhero had been slated for a November 2019 release. Patty Jenkins is returning as director and has teased fans with tidbits about the series` time jump to the 1980s. The first "Wonder Woman" was a major blockbuster for Warner Bros.` DC Comics franchise. The film earned more than $800 million globally. The original became the most successful live-action film directed by a woman. The sequel would have been released a month after the "Joker" which is scheduled to open on Oct. 4, 2019.

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...580

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : Entertainment/Recreation
Location :ABROAD

Baby is blown out of his mother`s arms after a tyre explodes while being inflated and knocks her to the ground





A baby was blown out of his mother`s arms and sent flying three feet through the air after a tyre suddenly exploded at a Chinese city earlier this month. The mother was standing next to the large tyre with her son when it burst after being left to pump for too long. The boy survived the accident unscathed while his mother, who was knocked to the ground, was injured.

Source: Plz, click here to show
--------------------------------
Next 10 Records

স্বাধীনকথা মিডিয়া

Kaliakair, Gazipur, Dhaka, Bangladesh.
http://www.selltoearn.com

প্রধান উপদেষ্টা সম্পাদক: Selltoearn.com

E-mail:selltoearnmoney@gmail.com

উপদেষ্টা সম্পাদক: Selltoearn.com

কারিগরি সহযোগীতায় :
হেমাস আইটি http://www.selltoearn.com

E-mail: info@selltoearn.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত স্বাধীনকথা মিডিয়া