Home Page

Id No...587

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :ABROAD

ভিভো স্মার্টফোনে ‘ফাইভ-জি প্রথম কল’ সফল



কোয়ালকমের দীর্ঘমেয়াদি অংশীদার ভিভো ফাইভ-জি বিকাশের ওপর তাদের পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে। ২২-২৪ অক্টোবর হংকংয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া কোয়ালকমের ফোরজি ও ফাইভ-জি সামিটে এ পরিকল্পনা প্রকাশ করা হয়। সম্মেলনে ভিভোর ভাইস প্রেসিডেন্ট ঝু ওয়েই, ভিভো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স গ্লোবাল রিসার্চ ইন্সটিটিউটের প্রধান, বলেন ফাইভ-জি উন্নয়ন সাফল্যের চাবিকাঠি হচ্ছে ইন্টেলিজেন্ট ফোন। আর ফাইভ-জি এ এআই হতে যাচ্ছে ভবিষ্যতের ভিভো ফোনগুলোর গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। অসামান্য নতুন বৈশিষ্ট্যগুলো স্মার্টফোনকে স্মার্ট থেকে বুদ্ধিমান রূপান্তর করবে। ভিভোর লক্ষ্য ২০২০ সালের মধ্যে ফাইভ-জি স্মার্টফোনের সম্পূর্ণ বাণিজ্যিকীকরণ অর্জন করা। উদ্ভাবনে শিল্প নেতৃস্থানীয় হিসেবে, ভিভো ফাইভ-জি স্মার্টফোনের বিকাশ ও গবেষণার ক্ষেত্রে ব্যাপকভাবে বিনিয়োগ করেছে। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে ভিভো বেইজিংয়ের ফাইভ-জি গবেষণা ইন্সটিটিউট কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে। ২০১৮-এ, ভিভো আনুষ্ঠানিকভাবে একটি ফাইভ-জি সিগনালিং পরীক্ষক প্রোটোটাইপের গবেষণা ও উন্নয়ন শুরু করে এবং এই বছরের আগস্টে ফাইভ-জি প্রথম কল সফলভাবে সফল করে। বাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য ফাইভ-জি স্মার্টফোনের হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যারের উন্নয়নে এটি একটি প্রাথমিক কী মাইলফলক। এর ওপর ভিত্তি করে ভিভো ডিসেম্বর মাসে মোবাইল টার্মিনালে ফাইভ-জি সক্রিয় অ্যাপ্লিকেশন প্রদর্শন করার পরিকল্পনা করেছে। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ডিয়েগো এবং চীনে (দোংগুয়ান, শেনজেন, নানজিং, বেইজিং এবং হানঝো) এ গবেষণা কেন্দ্রগুলো ফাইভ-জি, এআই, মোবাইল ফটোগ্রাফি এবং পরবর্তী প্রজন্মের প্রযুক্তিগুলোর উন্নয়নের ওপর মনোযোগ দেয়। সম্প্রতি বাংলাদেশের বাজারে প্রথমবারের মতো ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তির ভি-১১ প্রো এনে চমকে দেয় প্রযুক্তিপ্রেমীদের।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...584

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :GAZIPUR

বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি : চালু হচ্ছে ট্রেন সার্ভিস



গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্থাপিত দেশের প্রথম হাইটেক পার্ক ‘বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি’র সঙ্গে যোগাযোগ সহজ করার লক্ষ্যে চালু হচ্ছে ট্রেন সার্ভিস। রোববার রেল মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এর মাধ্যমে বিনিয়োগকারীরা খুব সহজে এবং অল্প সময়ে ঢাকা থেকে যাতায়াত করতে পারবেন। ফলে হাইটেক পার্কটি খুব দ্রুত কর্মচঞ্চল হয়ে উঠবে বলে আশা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, শুরু থেকেই ঢাকা টু কালিয়াকৈর শাটল রেল সার্ভিস চালুর জন্য চেষ্টা করে আসছে হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ। train-2 সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, দুটি ট্রেন দৈনিক চারবার ঢাকা থেকে কালিয়াকৈর যাতায়াত করবে। ‘বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি কমিউটার ট্রেন-১’ এবং ‘বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি কমিউটার ট্রেন-২’ নামে ট্রেন দুটি খুব শিগগিরই চালু হবে। ইতোমধ্যে, যাত্রীদের সুবিধার্থে কালিয়াকৈরে একটি আধুনিক রেলস্টেশন নির্মাণ শেষ হয়েছে। বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম বলেন, এই ট্রেন সার্ভিস চালু হলে বিনিয়োগকারীদের যাতায়াতের সময় কমে আসবে, ফলে তারা নিশ্চিন্তে বিনিয়োগ করতে পারবেন। আমরা বিনিয়োগের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে যা যা করা প্রয়োজন তাই করবো। ইতোমধ্যে এই পার্ক থেকে আইটি পণ্য রপতানি হতে শুরু হয়েছে। শিগগিরই এখানে ল্যাপটপসহ বিভিন্ন হার্ডওয়্যার পণ্য উৎপাদিত হবে। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, রেল সচিব মোফাজ্জেল হোসেন, আইসিটি বিভাগের সচিব জুয়েনা আজিজ, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক কাজী মো. রফিকুল আলম প্রমুখ।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...533

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 selltoearn.com@gmail.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :DHAKA

যেভাবে হ্যাকিং ঠেকানো সম্ভব!



বর্তমান এই প্রযুক্তিনির্ভর যুগে হ্যাকারের হাত থেকে কেউই নিরাপদ নয়। বিভিন্ন সংস্থা, বিখ্যাত কোনো তারকার সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট, এমনকি সরকারি প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটও হ্যাক হওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে। কিন্তু একটু সতর্ক থাকলেই হ্যাকিং ঠেকানো সম্ভব। হ্যাকিং থেকে বাঁচতে সহজ কিছু পদক্ষেপ আছে। তবে আর দেরি না করে চলুন জেনে নেই সেই উপায়গুলো সম্পর্কে-

১. সব জায়গায় একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন না:
অনেকেই একাধিক পাসওয়ার্ড মনে রাখতে পারেন না। কিন্তু তাই বলে সব অ্যাকাউন্টে একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করাটা মোটেই নিরাপদ নয়। এমন করলে খুব সহজেই আপনার অ্যাকাউন্টে হ্যাক করতে পারে হ্যাকাররা।

২. টু-ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন / টু স্টেপ-ভেরিফিকেশন:
ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে শুরু করে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পর্যন্ত, সব জায়গাতেই টু-স্টেপ ভেরিফিকেশনের অপশন চালু করতে পারেন আপনি। এই অপশন চালু করা থাকলে প্রতিবার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করার সময়ে আপনার মোবাইলে মেসেজ আকারে একটি কোড আসবে। এছাড়া আপনি লগ ইন করতে পারবেন না। এই অপশন চালু থাকার সুবিধাটি হল, হ্যাকার আপনার পাসওয়ার্ড জেনে ফেললেও আপনার মোবাইলে আসা কোডটি ছাড়া সে অ্যাকাউন্টে ঢুকতে পারবে না।

৩. ব্যক্তিগত তথ্য:
অনেক সময় দেখা যায়, আপনাকে ফোন করে বলা হচ্ছে ব্যাংকের জন্য আপনার ন্যাশনাল আইডি নম্বর অথবা ক্রেডিট কার্ডের নম্বর দিতে হবে। অনেকেই না বুঝে নম্বর দিয়ে দেন। কিন্তু কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান কখনও এভাবে ফোন করে ব্যক্তিগত তথ্য জানতে চাইবে না। এমন ফোন কল পেলে সবার আগে ওই প্রতিষ্ঠানের নম্বরে ফোন করুন এবং জানতে চান কোনো কারণে এমন ব্যক্তিগত তথ্য দেওয়ার প্রয়োজন সত্যিই আছে কিনা! বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এসব ফোন আসলে প্রতারকদের পাতা ফাঁদ হয়ে থাকে।

৪. আপডেট দিতে ভুলবেন না:
উইন্ডোজ বা ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমে আপডেট নেওয়াটা অনেকেরই অপছন্দ। অনেকেই একে অযথা ‘সময় নষ্ট’ বলে মনে করেন। কিন্তু এসব আপডেট আপনার কম্পিউটারকে সুরক্ষিত রাখতেই সাহায্য করে। তাই সব সময় আপডেটেড রাখুন আপনার কম্পিউটারকে।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...373

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :ABROAD

পকেটে মোবাইল বিস্ফোরণ!



একটি রেস্তোরাঁয় বসে খাবার খাচ্ছিলেন কয়েকজন। হঠাৎ একটি লোকের পকেটে রাখা মোবাইল ফোনটি বিস্ফোরিত হয়। ধোঁয়া উড়তে থাকে। রেস্তোরাঁয় ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। ভয়ে-আতঙ্কে আশপাশের লোকেরা নিজ নিজ আসন ছেড়ে দেন দৌড়। ভারতের মুম্বাইয়ের বানদুপ এলাকায় গত সোমবার এ ঘটনা ঘটে। এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, রেস্তোরাঁর একটি টেবিলে বসে দুই ব্যক্তি খাচ্ছিলেন। সে সময় বিস্ফোরণের পর এক ব্যক্তির মোবাইল থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখা যায়। তিনি লাফিয়ে উঠে মোবাইলটি ছুড়ে ফেলে দেন। তাঁর বুক পকেটে ছিল মোবাইলটি। পকেটটি আগুনে পুড়ে যায়। আশপাশের লোকেরাও ভয়ে খাবার ছেড়ে দৌড় দেন। মোবাইল ফোন বিস্ফোরিত হওয়ার ঘটনায় ওই ব্যক্তি সামান্য আহত হয়েছেন। লোকটিকে হাসপাতালেও ভর্তি করা হয়েছে। এ বছরের মার্চে ওডিশার খেরিয়াকানি জেলায় মোবাইল বিস্ফোরণের ঘটনায় এক তরুণীর মৃত্যু হয়। ওই তরুণী মোবাইলে পাওয়ার ব্যাংক লাগিয়ে তাঁর এক আত্মীয়ের সঙ্গে কথা বলছিলেন। এ সময় বিস্ফোরণে ১৮ বছর বয়সী ওই তরুণীর হাত, বুক ও পা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে হাসপাতালে নেওয়াও হয়েছিল।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...353

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :DHAKA

উত্তরায় ডোমেইন হোস্টিং প্রভাইডার ”মিট আপ ২০১৮”



বাংলাদেশ ডোমেইন হোস্টিং প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন (বিডিএইচপিএ) এবং উত্তরা হোস্ট এর যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর উত্তরায় ডোমেইন হোস্টিং প্রোভাইডার ‘মিট আপ’ আয়োজন করা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় উত্তরা ই-কমার্স ক্লাব মিলনায়তনে এই মিট আপ অনুষ্ঠিত হয়। বিডিএইচপিএ এর পরিচালক ইউসুফ আল আজাদের সঞ্চালনায় মিট আপে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি শাহাদাত হোসেন, সহ-সভাপতি মো. সাইদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক শাকিল আরেফিন, সাবেক সভাপতি সালেহ আহমদ, জাদুকর আইটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম ও ড্রিম লাইন আইটি সলিউশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মর্তুজা আহমেদ। উল্লেখ্য, মিট আপে ডোমেইন, হোস্টিং ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সমস্যা, ক্লায়েন্ট ম্যানেজমেন্ট, বাংলাদেশের হোস্টিং ব্যবসার প্রসার ও আস্থার পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে বিভিন্ন দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য প্রদান করা হয়। ডোমেইন, হোস্টিং ব্যবসাকে ডোমেইন হোস্টিং ইন্ডাস্ট্রিতে রূপ দানের লক্ষ্যে সরকার ও সংস্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা এ্যাসোসিয়েশন এর মাধ্যমে ইউজারদের স্কিল ডেভেলপমেন্ট কার্যক্রম হাতে নেওয়ার জন্য বেশির ভাগ বক্তা সুপারিশ করেন। অনুষ্ঠানে বিডিএইচপিএ এর সদস্যরা ছাড়াও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উদ্যোক্তারা অংশগ্রহণ করেন।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...344

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :DHAKA

মোবাইলেই বানান সিনেমা



আপনার পকেটের স্মার্টফোনটির সঙ্গে অল্প কিছু অ্যাপ আর গ্যাজেট যোগ করে সেরে ফেলতে পারবেন শুটিং করা থেকে ভিডিও সম্পাদনার কাজও। এসব দিয়ে চাইলে সহজেই যে কেউ ইউটিউব ভিডিও থেকে শুরু করে চলচ্চিত্র পর্যন্ত শুট করতে পারবেন। এসব সম্পর্কে খোঁজখবর নিয়ে জানাচ্ছেন তুসিন আহমেদ

চাই ভালো ক্যামেরা ফোন

স্মার্টফোনে ভিডিও করতে চাইলে আপনার ফোনের ক্যামেরাটি হওয়া চাই ভালো মানের। বাজারে হুয়াওয়ে পি২০ প্রো, স্যামসাং গ্যালাক্সি এস এস৯+, গুগল পিক্সেল এক্সএল, স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৮, ওয়ান প্লাস ৬, আইফোন ৮+, আইফোন ১০, এলজি ভি৩০ ইত্যাদি ফ্ল্যাগশিপ ফোন ক্যামেরার রাজা। তবে যদি বাজেট কম থাকে, তাহলে শাওমি রেডমি এ১, শাওমি রেডমি নোট ৩, হুয়াওয়ে নোভা ২ আই, মটরোলা জি৫এস প্লাস, অপো এফ৭, ভিভো ৯ ইত্যাদি ফোন দেখতে পারেন। এ ছাড়া বাজারে আরো অনেক ভালো ক্যামেরা ফোন রয়েছে। যদি আপনার বেশি ভিডিও ব্লগ করতে হয়, তাহলে সেলফিকেন্দ্রিক ফোন কেনা উচিত।

ক্যামেরা ফোন ভিডিও স্ট্যাবিলাইজার গিম্বল

ফোনে ভিডিও করার মূল চ্যালেঞ্জ সেটি স্থিরভাবে ধরে রাখা এবং দৃশ্যপট বদলানোর সময় সাবলীলভাবে প্যান করা। দুটি কাজ করার জন্যই প্রয়োজন একটি স্ট্যাবিলাইজার, যাকে ক্যামেরার ভাষায় ‘গিম্বল’ বলা হয়। সেলফি স্টিকের মতো দেখতে ডিভাইসটিতে ফোন রেখে ব্লুটুথের মাধ্যমে সংযোগ করে গিম্বল চালু করে দিলেই সেটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ফোনকে স্থির রাখবে। শুধু তা-ই নয়, শাটার বাটন ও ক্যামেরা ঘোরানোর জন্য এতে আছে হ্যান্ডল। বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের গিম্বল পাওয়া যায়। তার মধ্যে চীনের ঝিউন ব্র্যান্ডটি উল্লেখযোগ্য। প্রতিষ্ঠানটির স্মুথ কিউ মডেলের স্ট্যাবিলাইজারটি দেশের বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৮ হাজার টাকায়। এ ছাড়া ব্র্যান্ড ও মডেল অনুযায়ী বাজারে গিম্বলের দাম শুরু হয়েছে ১৫ হাজার টাকা থেকে।

ব্লুটুথ নিয়ন্ত্রিত মটোরাইজড ট্রাইপড

ইনডোর শুটিংয়ের জন্য ট্রাইপড একটি অপশন। ক্যামেরা যদি বেশি নাড়াচাড়া না করতে হয় ,তাহলে ট্রাইপডই শেষ কথা। এটার দাম গিম্বলের চেয়ে বেশ কম। দুই ধরনের ট্রাইপড বাজারে পাওয়া যায়। ব্লুটুথহীন ও ব্লুটুথসংবলিত। ব্লুটুথহীন ট্রাইপড হাত দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। দাম পড়বে এক হাজার ৩০০ থেকে দুই হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত। অন্যদিকে ব্লুটুথসংবলিত ট্রাইপডে ফোন রেখে ব্লুটুথ রিমোটের মাধ্যমে ফোনের অ্যাঙ্গেল ও প্যান বদলাতে রয়েছে শাওমি ট্রাইপড। এই ট্রাইপডে ভিডিও কল অথবা লাইভ কাস্ট ঝাঁকুনি ছাড়াই করা যাবে। তবে ট্রাইপডটির উচ্চতা কিছুটা কম, মূলত ডেস্কে ব্যবহারের জন্য তৈরি করা হয়েছে। ডিভাইসটি এক হাজার ৯৮০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

মোবাইল ক্যামেরার লেন্স

স্মার্টফোনে ছবি কিংবা ভিডিও আরো সুন্দর করে তুলতে বাজারে পাওয়া যায় কিছু পোর্টেবল লেন্স। এসব লেন্স প্রফেশনাল ডিএসএলআর ক্যামেরা লেন্সের মতো না হলেও স্মার্টফোনের ফটোগ্রাফিতে খানিকটা হলেও এক নতুন মাত্রা যোগ করবে। ফোনের জন্য সাধারণত ম্যাক্রো লেন্স, ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স, ফিশ আই লেন্স—এই তিন ধরনের লেন্স পাওয়া যায়।

ম্যাক্রো লেন্সের সাহায্যে খুব কাছ থেকে অর্থাৎ ২-৩ সেন্টিমিটার সামনের কোনো বস্তুকে ফোকাস করে ছবি তোলা যায়। ফিশ আই লেন্স দিয়ে ১৮০ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে ছবি তোলা যাবে। ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স দিয়ে কোনো দৃশ্যে আরো একটু বেশি প্রশস্ততায় ধারণ করা যাবে।

মডেল ও ব্র্যান্ড অনুযায়ী এগুলোর দাম পড়বে ২৫০ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা।

সেলফি স্টিক

স্মার্টফোনের সাহায্যে নিজেই নিজের কোনো দৃশ্য ধারণ ও ভিডিও ব্লগিং করার জন্য সেলফি স্টিক বেশ সহায়ক। ছোট ফোনের জন্য ছোট স্টিক আর বড় ফোনের জন্য বড় স্টিক ব্যবহার করাই ভালো। না হলে ফোনের আকার বেশি বড় হয়ে গেলে স্টিকের হোল্ডারে ঠিকমতো আটকাবে না, ফ্রেমিংয়েও ঝামেলা হবে। যত লম্বা স্টিক তত ভালো ছবি ও ভিডিও করা যাবে।

সেলফি স্টিকে যদি ক্যামেরা (গো প্রো) বা ভিডিও ক্যামেরা বসাতে চান, তাহলে স্টিকে মাউন্ট অপশন আছে কি না দেখে নিন। এটি আসলে মোটা একটি স্ক্রু, যা দিয়ে ক্যামেরার পজিশন ঠিক করা যায়।

বাজারে বিভিন্ন দামের ও নানা রকমের সেলফি স্টিক পাওয়া যায়। মূল্য শুরু ২০০ টাকা থেকে।

লাইটিং

মোবাইল ভিডিও করার সময় লাইট বা আলো বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। যদি আলো কম থাকে, তাহলে ভিডিও ভালো হবে না। যদি ইনডোর শুট হয়, তাহলে অবশ্যই লাইটের ব্যবহার করতে হবে। মোবাইল ক্যামেরার জন্য এলআইডি ফ্ল্যাশ লাইট কিনতে পাওয়া যায়। আকারে ছোট ও সহজেই বহনযোগ্য এই এলইডি ফ্ল্যাশ লাইটগুলো চার্জ করতে হয়। তারপর ফোনের ৩.৫ এমএম পোর্ট সংযোগ করতে হয়। তাহলে এটি চালু হয়ে আলো দেবে। এতে ভিডিওতে আলোর স্বল্পতা অনেকখানিই দূর হবে। এ ধরনের এলইডি ফ্ল্যাশ লাইট ৩০০ টাকা থেকে শুরু করে মডেল অনুযায়ী বিভিন্ন দামে বিক্রি হচ্ছে।

এ ছাড়া ছবি তোলা বা ভিডিওতে ব্যবহারের জন্য বড় আকারের লাইট সেটআপ বাজারে পাওয়া যায়। প্রয়োজনে সেগুলো কিনতে পারেন। ডিভাইসগুলোর দাম মডেল অনুযায়ী এক হাজার ৫০০ টাকা থেকে শুরু।

মাইক্রোফোন

ভিডিওতে সাউন্ড বেশ গুরুত্বপূর্ণ। যদি এমন কোনো ভিডিও তৈরি করতে চান—সেখানে ভয়েজের প্রাধান্য থাকবে, সে ক্ষেত্রে ফোনের বিল্ট ইন মাইক্রোফোন খুব একটা কাজে আসবে না। এ জন্য আলাদা একটি মাইক্রোফোন ব্যবহার করতেই হবে।

ভিডিও রেকর্ডিংয়ের ধরন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় মাইক্রোফোন কেনাটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। যদি বাজেট হয় সীমাবদ্ধ, তাহলে এমন একটি মাইক্রোফোন কিনুন, যা আপনি বেশির ভাগ কাজে ব্যবহার করতে পারবেন। ভিডিওর ক্ষেত্রে কনডেনসার মাইক্রোফোন ব্যবহার করা উচিত।

২৫০ থেকে শুরু করে ৫০ হাজার টাকার বেশি দামের মাইক্রোফোন রয়েছে।

অনেক সময় এসব মাইক্রোফোন অনেক স্মার্টফোনে সমর্থন না-ও করতে পারে। ফলে মোবাইলের বিল্টইন ক্যামেরার বদলে অন্য কোনো ভিডিও রেকর্ডিংয়ের অ্যাপ ব্যবহার করতে পারেন।

কোথায় পাবেন

ঢাকার বিসিএস কম্পিউটার সিটি, মাল্টিপ্ল্যান সেন্টার, বসুন্ধরা সিটি, বায়তুল মোকাররম, যমুনা ফিউচার পার্ক শপিং সেন্টার, স্টেডিয়াম মার্কেটে এসব গেজেট কিনতে পাওয়া যাবে। এ ছাড়া বিভিন্ন ই-কমার্স সাইট থেকেও এসব কেনা যাবে।

ভিডিও এডিটিং অ্যাপ

ভিডিও তো শুট করলেন। এবার পালা ভিডিও এডিটিং বা সম্পাদনার। এটাও একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ। কেননা সম্পাদনা না করে ইউটিউব বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও আপলোড করলে একটা খামতি থেকেই যায়। ভিডিও সম্পাদনার জন্য কম্পিউটার উপযোগী অনেক চমৎকার সফটওয়্যার রয়েছে। সেসবের সাহায্যে দ্রুত ও সুন্দরভাবে ভিডিও সম্পাদনা করা যায়। কম্পিউটার না থাকলেও চিন্তা নেই। মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমেও ভিডিও সম্পাদনার কাজটা করা যায়। তেমনি একটি অ্যাপ হতে পারে ‘অ্যাডোবি প্রিমিয়ার ক্লিপ’। ছবি সম্পাদনার সবচেয়ে জনপ্রিয় সফটওয়্যার ফটোশপের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাডোবির মোবাইলের ভিডিও সম্পাদনার অ্যাপ এটি। এই অ্যাপে ফোনের মেমোরির পাশাপাশি গুগল ড্রাইভ কিংবা ক্লাউড স্টোরেজ থেকে সরাসরি ভিডিও বা ছবি নিয়ে সম্পাদনা করা যাবে। অ্যাপের সাহায্যে চাইলে সরাসরি ভিডিও বা ছবি তুলেও সম্পাদনা করা যাবে। অ্যাপটির সুবিধা হচ্ছে এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবেই আপনার ভিডিও সম্পাদনা করে দেবে। সে ক্ষেত্রে ছবি বা ভিডিওগুলো নির্বাচন করে ‘Automatic’ বাটনে ক্লিক করতে হবে। তারপর ‘Replace soundtrack’ অপশনে ক্লিক করে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক যুক্ত করা যাবে। চাইলে ভিডিওতে নানা কালারের ফিল্টার সংযুক্ত করা যাবে। এ ছাড়া কত সময় ধরে ভিডিওটি চলবে তা-ও নির্ধারণ করে দেওয়া যাবে।

ভিডিও তৈরি হয়ে গেলে তা রেন্ডার করা যাবে অ্যাপের ওপরে থাকা শেয়ার বাটনে ক্লিক করে। অ্যাপটির সাহায্যে সরাসরি ইউটিউব, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও শেয়ার করা যাবে। এ ছাড়া ফোনের ইন্টারনাল মেমোরিতেও সংরক্ষণ করা যাবে। ৩.৯ রেটিং প্রাপ্ত অ্যাপটি ৫০ লাখেরও বেশি ডাউনলোড হয়েছে গুগল প্লেস্টোর থেকে। এই ঠিকানা (https://bit.ly/2LiFis0) থেকে অ্যাপটি বিনা মূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

মজার কোনো ভিডিও নানা ইফেক্ট দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করতে চান অনেকে। তাঁদের জন্য চমৎকার একটি ভিডিও এডিটিং অ্যাপ ‘ফানিম্যাট ভিডিও এডিটর’। অ্যাপটিতে ভিডিওর তালে নানা চমৎকার ইফেক্ট ও টেক্সট সংযুক্ত করা যায়। এতে বিল্ট ইন কিছু ভিডিও টেমপ্লেট রয়েছে। সেগুলো নির্বাচন করে ভিডিও যুক্ত করে দিলে অ্যাপটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে সম্পাদনা করবে। এ ছাড়া অ্যাপটিতে রয়েছে বিল্ট ইন মিউজিক। চাইলে সেগুলোও ব্যবহারকারীরা ব্যবহার করতে পারবেন। তবে এ ক্ষেত্রে ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে ফোনে। কিভাবে এই অ্যাপের সাহায্যে ভিডিও সম্পাদন করা যাবে, অ্যাপের ওপরে থাকা টিউটরিয়াল বিভাগ থেকে জেনে নেওয়া যাবে। অ্যাপটিতে ব্যবহারকারীরা ভিডিও আপলোড করে শেয়ার করতে পারেন। এতে ব্যবহারকারীরা হ্যাশট্যাগ অনুযায়ী জনপ্রিয় ও সর্বশেষ ভিডিওগুলো খুঁজে পাওয়ার সুবিধাও রয়েছে। এই ঠিকানা (https://goo.gl/uh1Cyz) থেকে ৪.৫ রেটিং প্রাপ্ত অ্যাপটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

ভিডিও সম্পাদনার আরেকটি চমৎকার অ্যাপ্লিকেশন হলো ‘এলাইভ মুভি মেকার’। অ্যাপটির সাহায্যে ভিডিও থেকে ইচ্ছামতো কোনো অংশ কাটা, ভিডিও রেকর্ড, একাধিক ভিডিও একত্রে যুক্ত করার কাজটি করা যাবে। এ ছাড়া টেক্সট, ভিডিওতে নানা ইফেক্ট ও কালার পরিবর্তন করার পাশাপাশি ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকও যুক্ত করা যাবে। অ্যাপটি এই ঠিকানা (https://goo.gl/BJUw96) থেকে বিনা মূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...294

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :ABROAD

Robot dogs that freaked people by opening doors out may soon come to a building near you



They look like they’ve scampered out of a thriller — sleek, four-legged robots vaguely resembling dogs, flinging open doors and evading attacks from the humans controlling them. And for the first time this week, videos posted to YouTube by the robotic dogs’ creators, Boston Dynamics, show the not-so-cuddly canines prancing around autonomously. The videos comes just three months after a Feb. 12 video of a robotic dog opening the door and escaping with its friend went viral, sparking headlines such as, “Boston Dynamics’ dog robot can open up doors now and WTF we’re all dead” and “Robot dogs OPENING DOORS is one of the scariest things you will see all day.” SpotMini robots, first unveiled by Boston Dynamics in June 2016, could become commonplace following CEO Marc Raibert’s announcement Friday at a conference that his company will begin selling the robots to businesses next year. They might appear outside construction zones — surveying the sites and collecting building data — or outside offices, where they could use their cameras to provide security. They could also be used to get into hard-to-reach spaces, such as the stairwells of skyscrapers, where they could check for explosives or “bad things” that shouldn’t be there, Raibert said.

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...289

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :DHAKA

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশে যাচ্ছে



ফ্রান্সের থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেসের কারখানায় বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট। ছবি: থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেসের সৌজন্যেমহাকাশে যাত্রার চূড়ান্ত ক্ষণে বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১। আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ২টা ১২ মিনিট থেকে ৪টা ২২ মিনিটের মধ্যে যেকোনো সময় স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হবে। উৎক্ষেপণ সফল হলে বিশ্বের ৫৭ তম দেশ হিসেবে নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হবে বাংলাদেশ। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট ও টেলিযোগাযোগ সেবার সম্প্রসারণ করা সম্ভব হবে। দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবিলা ও ব্যবস্থাপনায় নতুন মাত্রা যোগ হবে। স্যাটেলাইটভিত্তিক টেলিভিশন সেবা ডিটিএইচ (ডিরেক্ট টু হোম) ও জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কাজেও এ স্যাটেলাইটকে কাজে লাগানো যাবে। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের মুহূর্তটি বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ দেশের সব কটি বেসরকারি টেলিভিশন সরাসরি সম্প্রচার করবে। দুর্লভ এ মুহূর্ত সরাসরি প্রচারের ব্যবস্থা নিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ দেশের সব জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সও উৎক্ষেপণ মুহূর্তটি সরাসরি সম্প্রচার করবে। কেনেডি স্পেস সেন্টারের দুটি স্থান থেকে আগ্রহী দর্শনার্থীরা এই উৎক্ষেপণ দেখতে পারবেন। একটি স্থান অ্যাপোলো সেন্টার, উৎক্ষেপণস্থল থেকে দূরত্ব ৬ দশমিক ২৭ কিলোমিটার। উৎক্ষেপণের দৃশ্য কেনেডি স্পেস সেন্টারের মূল দর্শনার্থী ভবন (মেইন ভিসিটর কমপ্লেক্স) থেকেও দেখা যাবে। উৎক্ষেপণ স্থল থেকে এটির দূরত্ব ১২ কিলোমিটার। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের এ মুহূর্তের সাক্ষী হতে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্ব একটি প্রতিনিধিদল কেনেডি স্পেস সেন্টারে উপস্থিত থাকবে। মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের অবস্থান হবে ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে। এই কক্ষপথ থেকে বাংলাদেশ ছাড়াও সার্কভুক্ত সব দেশ, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিয়ানমার, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান, উজবেকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান ও কাজাখস্তানের কিছু অংশ এই স্যাটেলাইটের আওতায় আসবে। দেশের প্রথম এ স্যাটেলাইট তৈরিতে খরচ ধরা হয় ২ হাজার ৯৬৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১ হাজার ৩১৫ কোটি টাকা বাংলাদেশ সরকার ও বাকি ১ হাজার ৬৫২ কোটি টাকা ঋণ হিসেবে নেওয়া হয়েছে। এ ঋণ দিয়েছে বহুজাতিক ব্যাংক এইচএসবিসি। তবে শেষ পর্যন্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়নে খরচ হয়েছে ২ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা। স্যাটেলাইট তৈরির এই পুরো কর্মযজ্ঞ বাস্তবায়িত হয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) তত্ত্বাবধানে। তিনটি ধাপে এই কাজ হয়েছে। এগুলো হলো স্যাটেলাইটের মূল কাঠামো তৈরি, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ও ভূমি থেকে নিয়ন্ত্রণের জন্য গ্রাউন্ড স্টেশন তৈরি। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের মূল অবকাঠামো তৈরি করেছে ফ্রান্সের মহাকাশ সংস্থা থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস। স্যাটেলাইট তৈরির কাজ শেষে গত ৩০ মার্চ এটি উৎক্ষেপণের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় পাঠানো হয়। সেখানে আরেক মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেসএক্সের ‘ফ্যালকন-৯’ রকেটে করে স্যাটেলাইটটি আজ মহাকাশে যেতে পারে। স্যাটেলাইট তৈরি এবং ওড়ানোর কাজটি বিদেশে হলেও এটি নিয়ন্ত্রণ করা হবে বাংলাদেশ থেকেই। এ জন্য গাজীপুরের জয়দেবপুরে তৈরি গ্রাউন্ড কনট্রোল স্টেশন (ভূমি থেকে নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা) স্যাটেলাইট নিয়ন্ত্রণের মূল কেন্দ্র হিসেবে কাজ করবে। আর বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হবে রাঙামাটির বেতবুনিয়া গ্রাউন্ড স্টেশন।

শুরুর ইতিহাস

বাংলাদেশে প্রথম স্যাটেলাইট নিয়ে কাজ শুরু হয় ২০০৭ সালে। সে সময় মহাকাশের ১০২ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে কক্ষপথ বরাদ্দ চেয়ে জাতিসংঘের অধীন সংস্থা আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নে (আইটিইউ) আবেদন করে বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের ওই আবেদনের ওপর ২০টি দেশ আপত্তি জানায়। এই আপত্তির বিষয়টি এখনো সমাধান হয়নি। এরপর ২০১৩ সালে রাশিয়ার ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের বর্তমান কক্ষপথটি কেনা হয়। বাংলাদেশ বারবার আইটিইউর কাউন্সিল সদস্য নির্বাচিত হয়ে নীতিনির্ধারক পর্যায়ে থাকলেও এখন পর্যন্ত নিজস্ব কক্ষপথ আনতে পারেনি। জাতিসংঘের মহাকাশবিষয়ক সংস্থা ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর আউটার স্পেস অ্যাফেয়ার্সের (ইউএনওওএসএ) হিসাবে, ২০১৭ সাল পর্যন্ত মহাকাশে স্যাটেলাইটের সংখ্যা ৪ হাজার ৬৩৫। প্রতিবছরই স্যাটেলাইটের এ সংখ্যা ৮ থেকে ১০ শতাংশ হারে বাড়ছে। এসব স্যাটেলাইটের কাজের ধরনও একেক রকমের। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটটি বিভিন্ন ধরনের মহাকাশ যোগাযোগের কাজে ব্যবহার করা হবে। এ ধরনের স্যাটেলাইটকে বলা হয় ‘জিওস্টেশনারি কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট’। পৃথিবীর ঘূর্ণনের সঙ্গে সঙ্গে এ স্যাটেলাইট মহাকাশে ঘুরতে থাকে। দেশের প্রথম ন্যানো স্যাটেলাইট ব্র্যাক অন্বেষা প্রকল্পের প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর খলিলুর রহমান বলেন, ‘আমাদের ছেলে-মেয়েরা এখন নিজেরাই স্যাটেলাইট বানানোর দক্ষতা অর্জন করেছে। সরকারের সহযোগিতা পেলে ২০২১ সালের মধ্যে দেশেই নিজস্ব যোগাযোগ স্যাটেলাইট তৈরি করা সম্ভব। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট তৈরি না হলে এসবের কিছুই হতো না।’ বর্তমানে দেশে প্রায় ৩০টি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচারে আছে। এসব চ্যানেল সিঙ্গাপুরসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্যাটেলাইট ভাড়া নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। সব মিলিয়ে স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে চ্যানেলগুলোর খরচ হয় ২০ লাখ ডলার বা প্রায় ১৭ কোটি টাকা। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চালু হলে এই স্যাটেলাইট ভাড়ার অর্থ দেশেই থেকে যাবে। আবার স্যাটেলাইটের ট্রান্সপন্ডার বা সক্ষমতা অন্য দেশের কাছে ভাড়া দিয়েও বৈদেশিক মুদ্রা আয় করার সুযোগ থাকবে। এই স্যাটেলাইটের ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে ২০টি ভাড়া দেওয়ার জন্য রাখা হবে। মহাকাশে যে কক্ষপথে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট স্থাপন করা হবে, তা দেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর জন্য ব্যবহার করা কঠিন হবে বলে মনে করেন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক মোজাম্মেল বাবু। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশের যেখানে স্থাপন করা হবে, তা দিয়ে কাজ করা বাংলাদেশের টেলিভিশনগুলোর জন্য হবে একটি চ্যালেঞ্জ। টেলিভিশন চ্যানেলগুলো যাতে এ স্যাটেলাইটের সুবিধা পায়, সে জন্য যা দরকার তা করতে হবে। এ বিষয়ে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ গত সোমবার যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার আগে প্রথম আলোকে বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ব্যবহারে দেশীয় চ্যানেলগুলোর কোনো সমস্যা হলে তা সমাধান করা হবে। বিটিআরসি নতুন প্রযুক্তির প্রতি খুবই উদার। এ বিষয়ে ব্যবহারকারীদের যেকোনো প্রস্তাব বিবেচনা করা হবে। তিনি আরও বলেন, আবহাওয়া ঠিক থাকলে স্যাটেলাইটটি আজ রাতের নির্ধারিত সময়েই উৎক্ষেপণ হবে।

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...164

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location :DHAKA

সাইবার নিরাপত্তায় রাশিয়ার সঙ্গে সমঝোতার সিদ্ধান্ত



ঢাকা: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বিগত ৯ বছরে বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে ১০০ গুণের চেয়ে বেশি। বেড়েছে সরকারি সেবা দেওয়ার হারও। এসবের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সারা বিশ্বের মত বাংলাদেশও বাড়ছে সাইবার ঝুঁকি। তাই সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে রাশিয়ার সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। বুধবার (১৪ মার্চ) দিবাগত রাতে রাশিয়ার মস্কোয় রুশ ফেডারেশনের যোগাযোগ ও গণমাধ্যম মন্ত্রী নিকোলাই নিকিফরেভ-এর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন। সাইবার নিরাপত্তায় রাশিয়ান মন্ত্রী নিকিফরভের সহযোগিতা চেয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষণার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে আমরা গতিশীলতার সঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছি। আগামী দিনেও এই কার্যক্রম ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পাবে। তবে এ ক্ষেত্রে সাইবার নিরাপত্তায় রাশিয়ার সহযোগিতা প্রয়োজন। এসময় প্রতিমন্ত্রীর আহবানে ইতিবাচক সাড়া দিয়ে নিকিফরেভ সাইবার ঝুঁকি মোকাবেলায় সম্ভাব্য সাইবার আক্রমণের আন্তরাষ্ট্রীয় আগাম তথ্য বিনিময়ে একমত পোষণ করেন ও এর প্রতিরোধে ক্ষেত্র বৃদ্ধিতে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণের ওপর জোর দেন। পরে বৈঠকে ই-গভর্নেন্স কার্যক্রম আরও ফলপ্রসূ করতে উভয়পক্ষ একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মস্কোস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ড. এসএম সাইফুল হক, সিলেট ইলেকট্রনিকস সিটির প্রকল্প পরিচালক ব্যারিস্টার মো. গোলাম সরওয়ার ভূঁইয়া প্রমুখ। ২০১৭ সালের ৪-৮ ডিসেম্বর যশোরের শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কালিয়াকৈরের বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি পরিদর্শন করে স্কোলকোভো ফাউন্ডেশনের হেড অব ইন্টারন্যাশনাল এক্সিলারেশন প্রোগ্রাম দারিয়া লিপাতোভার নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল। পরে দলটি ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭-তে অংশ নেয় এবং ৭ ডিসেম্বর প্রতিমন্ত্রী পলকের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে। এসময় তারা প্রতিমন্ত্রীকে রাশিয়া সফরের আহবান জানালে পলক ১২ মার্চ রাশিয়া সফরে যান। বাংলাদেশ সময়: ২০৫২ ঘণ্টা, মার্চ ১৫, ২০১৮ টিএ

Source: Plz, click here to show
--------------------------------

Id No...161

Name : Selltoearn.com
E-mail :1 selltoearnmoney@gmail.com
E-maail :2 info@selltoearn.com
News Type : IT/Telecommunication
Location : ABROAD

ডিলিট ফেসবুক !



ফেসবুকের তথ্য কেলেঙ্কারির কথা ফাঁস হওয়ার পর আওয়াজ উঠেছে ফেসবুক ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়ার। এরই মধ্যে অনেকেই ফেসবুক বন্ধ করে দেওয়ার ব্যাপারে মুখ খুলতে শুরু করেছেন। টুইটারে ব্যাপক সাড়া পেয়েছে ‘ডিলিট ফেসবুক’ কর্মসূচি। ২০ মার্চ পর্যন্ত ডিলিট ফেসবুক (#DeleteFacebook) হ্যাশট্যাগটি ৫০ হাজারবারের বেশি টুইটারে ব্যবহৃত হতে দেখা গেছে। তবে এই ধারা যদি জনপ্রিয়তা পায়, তাতেও কি ফেসবুকের কিছু যায়-আসে? ২২০ কোটির বেশি ব্যবহারকারীর এই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ছেড়ে যাওয়া মানুষের সংখ্যা খুবই নগণ্য বলে মনে করছেন ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ। তবে চিন্তার বিষয় হচ্ছে, ফেসবুকে তথ্য মুছে ফেলা হলেও তা কিন্তু পুরোপুরি মুছে যায় না। বন্ধু বা পরিচিতজনের সুবাদে ফেসবুকে তথ্য থেকেই যাবে। এ ব্যক্তিগত তথ্য নিয়েও তৈরি হচ্ছে শঙ্কা। কীভাবে তথ্য হাতাল কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা? সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শিবিরের পক্ষে কাজ করা কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা ফেসবুক ব্যবহারকারী ও তাঁদের বন্ধুদের তথ্যভান্ডারে ঢোকার সুযোগ পেয়েছিল। ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে ভুল বুঝিয়ে গবেষণার নামে তারা এসব তথ্যের নাগাল পায়। তারা দাবি করেছিল, এসব তথ্য শুধু গবেষণার কাজে লাগানো হবে। এতে মানুষের নাম, অবস্থান, লিঙ্গ, তাদের পছন্দ-অপছন্দের তথ্য ছিল। ফেসবুক থেকে বেহাত হওয়া এসব তথ্য কি খুব মূল্যবান ছিল? বিশ্লেষকেরা বলছেন, যে পাঁচ কোটি মানুষের তথ্য বেহাত হয়েছে, তা খুবই মূল্যবান হতে পারে। ফেসবুক যেহেতু ব্যক্তিগত তথ্য বিক্রি করে না, তাই এসব তথ্য ফেসবুকের কাছ থেকে সহজে পাওয়া কষ্টকর। এ ছাড়া এর মূল্য ঠিক করাও কঠিন। তবে বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে এসব তথ্যের অনেক মূল্য। ফেসবুকের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা অ্যালেক্স স্ট্যামোসের তথ্য অনুযায়ী, সফটওয়্যার নির্মাতাদের বিভিন্ন প্রযুক্তিসুবিধা দেয় ফেসবুক। এর মধ্যে একটি জনপ্রিয় টুল হচ্ছে ফেসবুক লগ ইন। এর মাধ্যমে কোনো ওয়েবসাইট বা অ্যাপে ঢুকতে নতুন অ্যাকাউন্ট খোলার পরিবর্তে ফেসবুকের তথ্য-উপাত্ত দিয়েই ঢোকার সুযোগ থাকে। এটি সহজ বলে মানুষ তা ব্যবহার করে। মাত্র দুই-এক ক্লিক বা ট্যাপে এটি ব্যবহার করা যায়, পাসওয়ার্ড ও ইউজারনেম মনে রাখার ঝামেলা করতে হয় না। মানুষ যখন ফেসবুক লগ ইন ব্যবহার করে, তখন অ্যাপ নির্মাতাদের ফেসবুক প্রোফাইলসহ ই-মেইল, বন্ধুতালিকা, অবস্থানগত তথ্য ব্যবহারের অনুমতি দেয়। ২০১৫ সালে কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক আলেকজান্ডার কোগানের তৈরি ‘দিস ইজ ইয়োর ডিজিটাল লাইফ’ অ্যাপের একই ঘটনা ঘটে। এতে ফেসবুকের লগ ইন-সুবিধা ব্যবহার করা হয়। ২ লাখ ৭০ হাজার ব্যবহারকারী ফেসবুক অ্যাকাউন্ট দিয়ে সহজে ‘দিস ইজ ইয়োর ডিজিটাল লাইফ’ অ্যাপে অ্যাকাউন্ট খোলেন এবং কোগানের সঙ্গে ব্যক্তিগত তথ্য ভাগাভাগি করেন। ওই সময় ফেসবুক লগ ইন ব্যবহারকারী অ্যাপ নির্মাতাদের ফেসবুক ব্যবহারকারীর বন্ধুদের কিছু তথ্য সংগ্রহ করার অনুমতি দেওয়া হতো। অর্থাৎ তখন ফেসবুক ব্যবহারকারীরা তাঁদের তথ্য দিতে সম্মত হলে, তাঁদের বন্ধুদের তথ্যও পেয়ে যেত অ্যাপ নির্মাতারা। কিন্তু পরে এ সুযোগ বন্ধ করেছে ফেসবুক। ওই ২ লাখ ৭০ হাজার ব্যবহারকারীর তথ্য কাজে লাগিয়ে পাঁচ কোটি ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করেছেন কোগান। কোগানের প্রতিষ্ঠা করা গ্লোবাল সায়েন্স রিসার্চ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে এসব তথ্য ছিল। এসব তথ্য গ্লোবাল সায়েন্স রিসার্চের কাছ থেকে কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকার হাতে গেলে তখন থেকেই সমস্যার শুরু। ফেসবুক দাবি করে, ডেভেলপাররা ফেসবুকের তথ্য কোনো বিজ্ঞাপন নেটওয়ার্কসহ অর্থ আয়ে ব্যবহার করা হয়, এমন কোনো প্রতিষ্ঠানে দিতে পারবে না। এটা তাদের নিয়মবিরোধী। স্ট্যামোস অভিযোগ করেন, কোগান তথ্যের অপব্যবহার করেছেন। ফেসবুকের কোনো সিস্টেম বা কারিগরি নিয়ন্ত্রণ ভেঙে তথ্য নিতে পারেননি। জাকারবার্গ একে ‘বিশ্বাস ভঙ্গ’ করার ঘটনা বলেছেন। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, তারা কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকাকে তথ্য মুছে ফেলতে বলেছিল। কিন্তু তারা তা মুছে ফেলেনি। কেমব্রিজ অ্যানলাইটিকা বলছে, তারা ফেসবুকের নিয়মনীতি মেনেই কাজ করেছে। যা আইনগতভাবে করা যায়, তা-ই করেছে এবং ফেসবুকের অনুরোধে যেসব তথ্য মুছে ফেলার কথা, তা মুছেও ফেলা হয়েছে। কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা কী? যুক্তরাজ্যভিত্তিক তথ্যবিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান, যার মূল প্রতিষ্ঠান হচ্ছে স্ট্র্যাটেজিক কমিউনিকেশন ল্যাবরেটরিজ। প্রতিষ্ঠানটি রাজনৈতিক পরামর্শক হিসেবে কাজ করে। বিভিন্ন উৎস থেকে তথ্য নিয়ে ভোটারদের প্রোফাইল তৈরি করে। এরপর কম্পিউটার প্রোগ্রামের মাধ্যমে আচরণ বুঝে সে অনুযায়ী বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করে। ফেসবুকের অভিযোগ, ব্যবহারকারীর কোনো অনুমতি ছাড়াই কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকার কাছে তথ্য দেন কোগান। ট্রাম্পের নির্বাচনের প্রচারকারীরা কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকাকে ২০১৬ সালের ডেটা অপারেশন চালানোর জন্য নিয়োগ দেয়। ট্রাম্পের প্রধান পরিকল্পনাকারী স্টিভেন ব্যানন কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা বোর্ডের ভাইস প্রেসিডেন্ট। ফেসবুকের সঙ্গে অ্যানালাইটিকার সম্পর্ক শেষ হলো যেভাবে কোগান ও কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা তিন বছর আগেই ফেসবুকের সব তথ্য মুছে ফেলার কথা বলেছিল। কিন্তু তারা কথা রাখেনি। নিউইয়র্ক টাইমস-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা কিছু তথ্য রেখে দিয়েছিল। তারা এ বিষয়ে ফেসবুকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার কথা বলেছে। জাকারবার্গের প্রতিশ্রুতি তথ্য বেহাতের ঘটনায় তদন্ত করা, যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া, ভবিষ্যতে সতর্ক থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্ক জাকারবার্গ। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য সুরক্ষায় এখন থেকে কঠোর জাকারবার্গকে দেখা যাবে-এমন কথাও বলেছেন ফেসবুকের এই সহপ্রতিষ্ঠাতা। ব্যবহারকারীদের করণীয় ফেসবুকের সাম্প্রতিক ঘটনায় ব্যবহারকারীদের কিছু করার নেই। কারণ, ফেসবুক ও কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকার পক্ষ থেকে কিছু বলা হয়নি। প্রাইভেসি সেটিংস পরীক্ষা করে দেখতে পারেন তথ্য বেহাত হওয়ার মতো কোনো কিছু ঘটেছে কি না। সূত্র: বিবিসি ঘটনাপ্রবাহ ১৬ মার্চ ব্যবহারকারীর তথ্য বেহাত হওয়ার ঘটনা নিয়ে যে গণমাধ্যম অনুসন্ধান চালাচ্ছে, ফেসবুক তা টের পেলে গণমাধ্যমে চিঠি পাঠায়। ১৭ মার্চ প্রথমে দ্য নিউইয়র্ক টাইমস ও দ্য গার্ডিয়ান এবং পরে অন্য সংবাদমাধ্যমগুলো তথ্য কেলেঙ্কারির খবর প্রকাশ করে। ১৮ মার্চ যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের রাজনীতিবিদেরা ফেসবুকের কাছে ঘটনার ব্যাখ্যা দাবি করেন এবং কংগ্রেসের সামনে জাকারবার্গকে শুনানি হাজির করার দাবি করেন। ১৯ মার্চ নিজের দায়িত্ব বদলের কথা প্রকাশ করেন ফেসবুকের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা অ্যালেক্স স্ট্যামোস। খবরটি ছড়িয়ে পড়ার পর শেয়ারমূল্যে ধস নামে। এক দিনে প্রায় চার হাজার কোটি ডলার মূল্য কমে যায়। ২০ মার্চ ইউরোপীয় সংসদের প্রধান ফেসবুকের বেহাত হওয়া তথ্য অপব্যবহার হয়েছে কি না, তা তদন্তের কথা জানায়। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে এ ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। ২০১৬ মার্কিন নির্বাচনে কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকার ভূমিকা নিয়ে কথা বলায় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যালেকজান্ডার নিক্সকে বরখাস্ত করে প্রতিষ্ঠানটি। ২১ মার্চ ফেসবুকের শেয়ারের দাম আরও কমে যায়। প্রায় ছয় হাজার কোটি মার্কিন ডলার মূল্য কমে যায় প্রতিষ্ঠানটির। এ ছাড়া জাকারবার্গের সমালোচনায় মুখর হয়ে ওঠে গণমাধ্যম। ২২ মার্চ পাঁচ দিনের নীরবতার পর মুখ খোলেন ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ। দুঃখ প্রকাশ করেন এবং ভবিষ্যতে সতর্ক থাকার প্রতিশ্রুতি দেন। কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা: যেভাবে পাঁচ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ছিনতাই হলো ১ আনুমানিক ৩ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ভোটারের (সিডারস) প্রত্যেককে দুই থেকে পাঁচ ডলারের বিনিময়ে তাঁদের বিস্তারিত ব্যক্তিগত/রাজনৈতিক পরীক্ষা দিতে বলা হয়। এর জন্য তাঁদের নিজেদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট দিয়ে অ্যাপটিতে লগ-ইন করতে হয়েছিল ২ এই পরীক্ষা থেকে অ্যাপটি ভোটারের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে তাঁদের পছন্দ ও ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করে... ৩ ব্যক্তিত্বের ধরন বোঝার কুইজের উত্তর এবং ফেসবুকে থাকা ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য মিলিয়ে অ্যাপটি ভোটারের মনোজগতের নকশা তৈরি করে ৪ সব উৎস থেকে পাওয়া তথ্য-উপাত্ত অ্যালগরিদম, অর্থাৎ প্রোগ্রামের মাধ্যমে সমন্বয় করে ভোটারে নথি বানানো হয়। এরপর তৈরি হয় শীর্ষ নথি (শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের ১১টি প্রধান অঙ্গরাজ্যের* ২০ লাখ ভোটার)। এই নথিতে প্রত্যেকের শত শত তথ্য-উপাত্ত ছিল ব্যবহারকারীর তথ্য বন্ধুদের তথ্য ...একই সঙ্গে যাঁদের পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে তাঁদের বন্ধুদের তথ্যও। এতে পাঁচ কোটির বেশি ব্যবহারকারীর ফেসবুকের তথ্য হাতে চলে আসে এই ভোটারদের ব্যক্তিগত তথ্যের ওপর ভিত্তি করে তাঁদের কাছে সুনির্দিষ্টভাবে বিজ্ঞাপন পাঠানো হয় *আরকানসাস, কলোরাডো, ফ্লোরিডা, আইওয়া, লুসিয়ানা, নেভাদা, নিউ হ্যাম্পশায়ার, নর্থ ক্যারোলিনা, ওরেগন, সাউথ ক্যারোলিনা, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

Source: Plz, click here to show
--------------------------------
Next 10 Records

স্বাধীনকথা মিডিয়া

Kaliakair, Gazipur, Dhaka, Bangladesh.
http://www.selltoearn.com

প্রধান উপদেষ্টা সম্পাদক: Selltoearn.com

E-mail:selltoearnmoney@gmail.com

উপদেষ্টা সম্পাদক: Selltoearn.com

কারিগরি সহযোগীতায় :
হেমাস আইটি http://www.selltoearn.com

E-mail: info@selltoearn.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত স্বাধীনকথা মিডিয়া